ওয়েবসাইটের জন্য কোন ধরণের হোস্টিং সার্ভার উপযুক্ত?

  • Home
  • Web Hosting
  • ওয়েবসাইটের জন্য কোন ধরণের হোস্টিং সার্ভার উপযুক্ত?
Web Hosting

সম্প্রতি আমাদের একজন পাঠক জানতে চেয়েছেন তার ওয়েবসাইটের জন্য কোন ধরণের হোস্টিং সার্ভার উপযুক্ত হতে পারে।

এই লেখাটিতে জানা যাবে হোস্টিং সার্ভার কি, সার্ভারের ধরণ, মূল্য ও কোন ক্ষেত্রে কোন সার্ভারটি উপযুক্ত হতে পারে।

প্রথমেই জানা যাক ডোমেইন সম্পর্কেঃ

ডোমেইন হল ওয়েবসাইটের নাম, যা সাধারণত প্রতিষ্ঠানের নাম হয়ে থাকে। যার দ্বারা ক্রেতারা আপনার প্রতিষ্ঠানে অনলাইনে ভিসিট করতে পারবে এবং সরবরাহকৃত পণ্য-সেবাগুলোর বিস্তারিত জানতে ও অর্ডার করতে পারবে।

ডোমেইন মূল্যঃ

ডোমেইনের মূল্য নির্ধারণ হয় তার টিএলডি (top-level domain) এর উপর ভিত্তি করে। যেমনঃ .com টিএলডির মূল্য ৳৯০০-৳১৫০০, আবার .store টিএলডি-এর মূল্য  ৳৪৫০০ – ৳৫০০০

হোস্টিং সার্ভার কি?

হোস্টিং সার্ভার মূলত ওয়েব ভিত্তিক কম্পিউটার। যার মধ্যে থাকা তথ্যসমূহ ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক দ্বারা আদান-প্রদান করা যায়। যেমনঃ ছবি, টেক্সট, ভিডিওসহ অন্যান্য ফাইলসমূহ।

কেন হোস্টিং সার্ভার প্রয়োজন পড়ে?

ওয়েবসাইটের ফাইলসমূহ সংরক্ষণ করতেই হোস্টিং সার্ভারের প্রয়োজন হয়।

ওয়েব হোস্টিং সার্ভার হল ওয়েবসাইটের স্টোরেজ (ফোন মেমোরি কার্ডের মত), যেখানে ওয়েবসাইটের সকল তথ্য/ফাইল সংরক্ষিত থাকে এবং সেই ফাইলগুলো ওয়েবসাইটির মাধ্যমে পরিচালনা করা যায়।

যেমনঃ নতুন ফাইল যুক্ত করা, সম্পাদনা করা, ফাইল/তথ্য মুছে ফেলা ইত্যাদি।

আমরা যখন ফেইসবুকে কোন ছবি/লেখা প্রকাশ করি, তখন তা ফেইসবুকের হোস্টিং সার্ভারে সংরক্ষণ হয়, যেখান থেকেই সেই কন্টেন্টগুলো আমাদের প্রোফাইলসহ অন্যান্যদের প্রোফাইলে প্রদর্শন হতে থাকে।

হোস্টিং সার্ভারের মূল্যঃ

হোস্টিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের সার্ভার ভাড়া নেয়া যায়। যার মূল্য সার্ভার কনফিগারেশন উপর নির্ভরশীল।নিজস্ব হোস্টিং সার্ভার সেটআপ ও ব্যবস্থাপনা করতে বৃহৎ বিনিয়োগ ও প্রযুক্তির প্রয়োজন। তাই প্রায় ৯৯ শতাংশ ক্ষেত্রেই ভাড়ায় চালিত হোস্টিং সার্ভারে ওয়েবসাইট বা ওয়েব অ্যাপ হোস্ট করা হয়।

কম্পিউটার বা মোবাইলের কনফিগারেশনের উপর ভিত্তি করে যেমন তার মূল্য নির্ধারিত হয়। ঠিক হোস্টিং সার্ভারের খেত্রেও বিষয়টি এক।

সার্ভার কনফিগারেশন যত বেশি হয়, মূল্যও তথ্য বেশি হয়। আর, কনফিগারেশন যত শক্তিশালী হয়, ওয়েব অ্যাপের গতি ও কর্মক্ষমতাও ততো বেশি হয়।

হোস্টিং সার্ভারের ধরনঃ

সাধারণত ৪ ধরনের হোস্টিং সার্ভার সর্বাধিক জনপ্রিয় ও ব্যবহৃত।

১। শেয়ারড হোস্টিং

২। ক্লাউড হোস্টিং

৩। ভিপিএস সার্ভার

৪। ডেডিকেটেড সার্ভার

এছাড়াও ওয়ার্ডপ্রেস সফটওয়্যারটি সর্বাধিক ব্যবহৃত ও জনপ্রিয় হওয়ায় রয়েছে ম্যানেজড ওয়ার্ডপ্রেস ও উকমার্স হোস্টিং।

১। শেয়ারড হোস্টিং

ওয়েবসাইট হোস্ট করার সবচেয়ে সাশ্রয়ী মাধ্যম হল শেয়ারড হোস্টিং।

একটি শেয়ারড হোস্টিং সার্ভারে অনেকগুলো ব্যবহারকারী/ওয়েবসাইট হোস্ট করা থাকে, যার জন্যই এই ধরণের সার্ভারকে শেয়ারড হোস্টিং সার্ভার বলা হয়।

সার্ভারের রিসোর্সগুলো একাধিক ব্যবহারকারী বা ওয়েবসাইটের মাঝে বণ্টন হয়, ফলে কোন একটি ওয়েবসাইটে অতিরিক্ত রিসোর্স ব্যবহৃত হলে বা হটাৎ ভিসিটর বেড়ে গেলে, সেই সার্ভারে হোস্ট করা অন্যান্য ওয়েবসাইটের উপর তার প্রভাব পড়ে।

shared web hosting growbig
শেয়ারড হোস্টিং সার্ভার উদাহরণ

উপরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, একজন তার ওয়েবসাইটে অতিরিক্ত রিসোর্স ব্যবহার করায়, অন্যান্য ব্যবহারকারীরা রিসোর্স কম পাচ্ছে (র‍্যাম, প্রসেসর, ব্যান্ডউইথ, স্টোরেজ ইত্যাদি)।

শেয়ারড হোস্টিং কোন ক্ষেত্রে উপযুক্ত?

যেকোনো ব্যবসা/উদ্যোগের অনলাইন পরিচিতি প্রতিষ্ঠায় ওয়েবসাইট প্রয়োজন, তবে গ্রাহকরা মাঝে মাঝে সাইট ভিসিট করবে, সব সময় সাইটে একাধিক ভিসিটর থাকবে না, সেসকল ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে শেয়ারড হোস্টিং উপযুক্ত।

আনুমানিক ব্যয়ঃ ৳২৫০ – ৳৬৫০/মাসিক

২। ক্লাউড হোস্টিং

ক্লাউড হোস্টিও উল্লেখিত শেয়ারড হোস্টিং এর মতই, যা একাধিক ব্যবহারকারীরা একই সাথে ব্যবহার করে থাকে।

তবে এর কনফিগারেশন প্রচলিত শেয়ারড সার্ভারের চেয়ে উন্নত থাকে। ফলে ওয়েবসাইটের গতি ও কর্মক্ষমতাও দ্রুতগতির হয়।

আরও একটি উল্লেখিত পার্থক্য হল, অন্যান্য প্রচলিত সার্ভারগুলোর মত ওয়েবসাইট বা অ্যাপটি সুনির্দিষ্ট একটি ফিজিক্যাল সার্ভারে সংরক্ষণ করা হয় না। বরং একটি নেটওয়ার্ক দ্বারা সংযুক্ত ফিজিক্যাল ও ভার্চুয়াল ক্লাউড সার্ভারে চালিত হয়।

এতে করে সার্ভারের কার্যক্ষমতা বেশী থাকে। এছাড়াও সার্ভারের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সার্ভার পরিবর্তন না করেই প্রয়োজন অনুযায়ী সার্ভারের কনফিগারেশন যেকোনো সময় বৃদ্ধি/কমানো যায়।

ক্লাউড হোস্টিং কোন ক্ষেত্রে উপযুক্ত?

  • প্রচলিত বাণিজ্যিক ও ই-কমার্স ওয়েবসাইট
  • যেসকল ওয়েবসাইটে একই সাথে একাধিক ভিসিটর/গ্রাহক ভিসিট করবে।
  • পণ্য/সেবা ক্রয়/বিক্রয় হবে।
  • সার্ভার পরিবর্তন না করেই, চাহিদা মত রিসোর্স বৃদ্ধির সুবিধা পেতে।

আনুমানিক ব্যয়ঃ ৳৯২৫ – ৳১৩৭৫/মাসিক

৩। ভিপিএস হোস্টিং

ভিপিএস সার্ভারেও একাধিক ব্যবহারকারী থাকে। তবে ভিপিএস সার্ভারের রিসোর্স প্রত্যেকটি ব্যবহারকারীর জন্য সুনির্দিষ্ট থাকায়, ব্যবহারকারীর সাইটটি সুনির্দিষ্ট পরিমাণ রিসোর্স ব্যবহার করতে পারে। ফলে শেয়ারড সার্ভারের এর চেয়ে ভিপিএস বেশী শক্তিশালী হয়ে থাকে।

ITeKattor.CoM ওয়েবসাইটের জন্য বর্তমানে ITeKattor.CoM এর ভিপিএস সার্ভার ব্যবহার করা হচ্ছে।

growbig vps hosting server
ভিপিএস হোস্টিং সার্ভার উদাহরণ

উপরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে প্রতিটি ব্যবহারকারীর জন্য সুনির্দিষ্ট রিসোর্স বরাদ্ধ রয়েছে, কেউ নির্ধারিত রিসোর্সের বেশী ব্যবহার করতে পারবে না। ফলে প্রত্যেকেই সার্ভারের সমান কার্যক্ষমতা পাচ্ছে এবং একজনের জন্য অন্যের ওয়েবসাইটের কার্যক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে না।

ভিপিএস হোস্টিং কোন ক্ষেত্রে উপযুক্ত? 

  • যেসকল ওয়েবসাইটে একই সাথে একাধিক গ্রাহক ভিসিট করে।
  • সার্ভারের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন
  • ই-কমার্স বা ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন (ওয়েব অ্যাপ)
  • যাদের সুনির্দিষ্ট সার্ভার কনফিগারেশন প্রয়োজন
  • যাদের দ্রুতগতিসম্পন্ন ওয়েবসাইট প্রয়োজন

অসুবিধাঃ 

  • ওয়েব সার্ভার ব্যবস্থাপনার ন্যূন্নতম অভিজ্ঞতা প্রয়োজন (যদি সিপ্যানেল না থাকে)
  • সিপ্যানেল (সার্ভার ব্যবস্থাপনা সফটওয়্যার) আলাদাভাবে ক্রয়ের প্রয়োজন হয় বা হতে পারে
  • শেয়ারড ও ক্লাউড সার্ভারের থেকে মূল্য বেশী হয়ে থাকে

আনুমানিক ব্যয়ঃ ৳১,৩০০ – ৳৬,৫০০/মাসিক

 ৪। ডেডিকেটেড হোস্টিং

ডেডিকেটেড হোস্টিং সার্ভার হল সর্বাধিক ক্ষমতাসম্পন্ন। এ ধরনের সার্ভারে ওয়েবসাইট বা ওয়েব অ্যাপ অত্যন্ত দ্রুতগতি ও কার্যক্ষমতাসম্পন্ন হয়ে থাকে।

কারণ সম্পূর্ণ সার্ভার বা কম্পিউটারটি শুধুমাত্র একজন ব্যবহারকারীর জন্য বরাদ্দ থাকে। ফলে সার্ভারের সম্পূর্ণ রিসোর্স একাই ব্যবহার করা যায়।

নিম্নের ছবিতে দেখা যাচ্ছে প্রতিটি ব্যবহারকারী পৃথক ডেডিকেটেড সার্ভার ব্যবহার করছে, যেখানে অন্য কোনো ব্যবহারকারী বা ওয়েবসাইট হোস্ট করা নেই।

dedicated hosting server

ডেডিকেটেড সার্ভার কোন ক্ষেত্রে উপযুক্ত?

  • ই-কমার্স ও অন্যান্য ওয়েব অ্যাপ
  • অত্যন্ত দ্রুতগতিসম্পন্ন ওয়েবসাইট কার্যক্ষমতা পেতে।
  • যেসকল ওয়েবসাইটে/অ্যাপে একই সাথে বা সর্বদাই অত্যধিক গ্রাহক ভিসিট করে।
  • অন্যের সাথে সার্ভারের অংশীদারিত্ব না করতে চাইলে।

অসুবিধাঃ

  • অন্যান্য সার্ভারের তুলনায় মূল্য অনেক বেশী হয়ে থাকে।

আনুমানিক ব্যয়ঃ ৳৬,৫০০ – ৳৩০,০০০/মাসিক

বিশ্বব্যাপী সেরা কিছু হোস্টিং সেবাদানকারী সংস্থা

 

bluehost

Bluehost জনপ্রিয় এবং নির্ভরযোগ্য একটি হোস্টিং প্রতিষ্ঠান, যেখানে নানা ধরণের হোস্টিং সার্ভার উপলব্ধ রয়েছে। যেমনঃ শেয়ারড হোস্টিং, ওয়ার্ডপ্রেস হোস্টিং, উকমার্স হোস্টিং, ভিপিএস ও ডেডিকেটেড সার্ভার। বিশেষ করে ওয়ার্ডপ্রেস ও উকমার্স সফটওয়ারের জন্য ব্লুহোস্ট সর্বাধিক জনপ্রিয়।

HostGator-ও বুলুহোস্টের মতই জনপ্রিয় হোস্টিং সেবাদানকারী সংস্থা। যেখানে শেয়ারড হোস্টিং, ওয়ার্ডপ্রেস হোস্টিং, ভিপিএস ও ডেডিকেটেড সার্ভার উপলব্ধ রয়েছে।

NameCheap সর্বাধিক সুলভ মূল্যের শেয়ারড হোস্টিং সার্ভারের জন্য নেমচিপ বিখ্যাত। নেমচিপ ও হোস্টগেটরে প্রায় একই ধরণের সার্ভার উপলব্ধ রয়েছে। তবে নেমচিপের ভিপিএস ও ডেডিকেটেড সার্ভারের ক্ষেত্রে সিপ্যানেল পৃথকভাবে ক্রয়ের প্রয়োজন।

সর্বশেষ পরামর্শঃ

শেয়ারড হোস্টিং এর কার্যক্ষমতা সকল স্থানেই প্রায় এক। যদি সাইটে সবসময় তেমন একটা ভিসিটর না থাকে, শুধুমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক তথ্যগুলোর অনলাইন প্রদর্শনে ওয়েবাইট প্রয়োজন, সে ক্ষেত্রে শেয়ারড হোস্টিং ব্যবহার করা যেতে পারে।

তবে ইকমার্স এর ক্ষেত্রে ব্লুহোস্টের উকমার্স হোস্টিং বা হোস্টগেটরের ভিপিএস সার্ভার নেয়া যেতে পারে। এতে গ্রাহকরা স্টোর ব্রাউজিং-এ দারুণ অভিজ্ঞতা পাবে।

সফটওয়ার সংস্থা হিসেবে আমাদের গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী নানা ধরণের হোস্টিং সার্ভার ব্যবহারের প্রয়োজন হয়। সেই অভিজ্ঞতার আলোকেই নির্দেশনাটি প্রকাশ করা, যা আশা করছি আপনার ওয়েবসাইট তৈরিতে সহায়ক হবে।

ধন্যবাদ!

Leave a Reply